যে কারণে মনোনয়ন বঞ্চিত হবেন আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপিরা


তরফ বার্তা প্রকাশের সময় : জুলাই ২৩, ২০২২, ১১:১২ অপরাহ্ন /
যে কারণে মনোনয়ন বঞ্চিত হবেন আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপিরা
পাঁচটি অপরাধের যেকোনো একটি অপরাধ করলে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন না বর্তমান এমপিরা। আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারক মহল এই ব্যাপারে একটি চূড়ান্ত নীতিমালার খসড়া তৈরি করেছে। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই বিষয়টি তদারকি করছেন। যারা দলের বিতর্কিত ভূমিকা পালন করছেন, দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করছেন, দলের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করেছেন তাদেরকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক দেয়া হবে না। এই রকম অপরাধের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের তালিকা প্রণয়নের কাজ চূড়ান্ত হচ্ছে বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। আওয়ামী লীগের ওই সূত্র বলছে যে, কমপক্ষে ১০০ বর্তমান এমপি আগামী এ কারণে মনোনয়ন বঞ্চিত হতে পারে। যে পাঁচটি কারণে আগামী নির্বাচনে বর্তমান আওয়ামী লীগের একজন এমপি মনোনয়ন বঞ্চিত হতে পারেন তার মধ্যে রয়েছে:
১. দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে স্থানীয় নির্বাচনে প্রার্থী দেওয়ার অভিযোগ যদি প্রমাণিত হয়, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বা উপজেলা নির্বাচনে অনেক এমপি তার নিজস্ব ব্যক্তিকে তার জন্য দলীয় মনোনয়ন পাওয়া ব্যক্তির বিরোধিতা করেছে, এমপির নিজস্ব ব্যক্তিকে নির্বাচনে জয়ী করানোর জন্য প্রচেষ্টা নিয়েছে। এই সমস্ত অভিযোগে যারা অভিযুক্ত এবং সে সমস্ত অভিযোগ যাদের বিরুদ্ধে প্রমাণিত হবে তারা আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাবেন না।
২. দলের কোন্দল সৃষ্টি, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি। যারা দলের ভিতরে কোন্দল সৃষ্টি করছেন, বিভিন্ন কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছেন, দলের শৃঙ্খলা মানেননি, প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন এবং নির্দেশনা প্রতিপালন করেননি তারা আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত হতে পারেন বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।
৩. বিতর্কিত ভূমিকায় যারা অবতীর্ণ হয়েছেন বিশেষ করে কাউকে মারধর করা, স্কুল শিক্ষককে পেটানো বা এলাকায় কোনো বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে আলোচিত হওয়া এবং সেই বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে যদি তাদের সংশ্লিষ্টতা প্রমাণিত হয়, সেক্ষেত্রে আগামী নির্বাচনে তারা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নাও পেতে পারেন বলে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।
৪. যারা সংখ্যালঘু নিপীড়ন বা সংখ্যালঘুদের স্বার্থহরণের কাজে জড়িত ছিলো বা এ ধরনের কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে তাদেরকে মনোনয়ন দেয়া হবে না। সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। বিশেষ করে সর্বশেষ নড়াইলের ঘটনাটি সরকারকে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন করেছে। আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করতে বদ্ধপরিকর। এ কারণে যাদের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অভিযোগ উত্থাপিত হবে, সেই সমস্ত অভিযোগ যদি প্রমাণিত হয় তাহলে তাদেরকেও আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দেবে না বলে দলের হাইকমান্ড সূত্র নিশ্চিত করেছে।
৫. যে সমস্ত ব্যক্তিরা এমপি হয়ে দুর্নীতি এবং অনিয়মের সঙ্গে জড়িত ছিলেন এবং এই সমস্ত অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে, দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক অভিযুক্ত হয়েছেন এবং অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে তাদেরকেও আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দিবেনা বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।
আওয়ামী লীগ ইতিমধ্যে মনোনয়ন চূড়ান্ত করার কাজ শুরু করেছে এবং যারা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের মধ্যে থাকবে তাদেরকে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হবে না বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এমন প্রার্থীদের সামনে উপস্থাপন করতে চায় যাদের ইমেজ ভালো এবং জনগণ যাদেরকে দেখে পছন্দ করবে। সেই প্রার্থিতা চূড়ান্ত করার লক্ষ্যেই আওয়ামী লীগ এখন কাজ করছে বলে জানা গেছে।